কম্পিউটার ভাইরাস আক্রান্ত হলে কি করবেন

আপনার যদি মনেহয় আপনার কম্পিউটার ভাইরাস আক্রান্ত তাহলে প্রথমেই দেখে নিন আপনার কম্পিউটার এ যে এন্টিভাইরাস ইনস্টল করা আছে সেটার ভাইরাস ডিফিনিশন আপডেটেড কিনা। আপডেটেড না হলে আপডেট করে নিন।  এবার আপনি আপনার এন্টিভাইরাস দিয়ে আপনার সম্পূর্ণ কম্পিউটার স্ক্যান করুন।  অনেক সময় এন্টিভাইরাস এর  real-time shield / protection কোন ভাইরাস ডিটেক্ট করতে ব্যর্থ হতে পারে যেটা আবার on-demand স্ক্যান এ ধরা পরে।  তাই প্রতি সপ্তাহে অন্তত একবার আপনার সম্পূর্ণ কম্পিউটার স্ক্যান করা উচিৎ। যদি আপনার স্ক্যান করে কোনো ভাইরাস ডিটেক্ট করে তাহলে সেটা ক্লিন/ quarantine করে ফেলুন।

এবার ধরা যাক আপনার এন্টিভাইরাস ভাইরাসটা ডিটেক্ট করতে ব্যর্থ হলো অথবা আপনার কোনো এন্টিভাইরাসই ছিলোনা, তাহলে কি করবেন :

১. এক্ষেত্রে আপনাকে standalone scanner / on -demand scanner দিয়ে আপনার কম্পিউটার স্ক্যান করে দেখতে হবে। প্রথমে ব্যবহার করে দেখতে পারেন Kaspersky Virus Removal Tool . আপনি softpedia থেকেও ডাউনলোড করতে পারেন। ডাউনলোড শেষ হলে ডাবল ক্লিক করে টুলটি স্টার্ট করুন। স্ক্যান শুরু করার আগে আমরা একটু সেটিংস চেঞ্জ করে নিব।

কম্পিউটার ভাইরাস মুক্ত রাখার উপায়
kaspersky virus removal tool

change parameter এ ক্লিক করুন এবং দেখে নিন object to scan সেকশন এ system drive সিলেক্ট করা আছে নাকি, না করা থাকলে করে নিন।

কম্পিউটার ভাইরাস মুক্ত রাখার উপায়
kaspersky virus removal tool

এরপর ok সিলেক্ট করে স্ক্যান শুরু করে দেন।

কম্পিউটার ভাইরাস মুক্ত রাখার উপায়
kaspersky virus removal tool

স্ক্যান শেষ হওয়া পর্যন্ত অপেক্ষা করুন আর কোনো ভাইরাস পাওয়া গেলে ইন্সট্রাকশন অনুযায়ী সেটা quarantine / delete করুন। মনে রাখবেন kasperspy এর এই টুলটিতে ভাইরাস ডেফিনিশন update করার কোনো অপশন নেই।  তাই আপনার উচিৎ প্রত্যেকবার ব্যাবহার করার আগে latest version ডাউনলোড করে নেওয়া। kaspersky lab প্রতিদিন এই টুলটির আপডেটেড ভার্সন রিলিজ করে।

২. আরেকটা অসাধারণ টুল হলো Dr.Web CureIt . এটাও ব্যবহার করা খুব সহজ, ডাউনলোড করে ডাবল ক্লিক করে স্টার্ট করে ফেলুন।  এটাতেও ভাইরাস ডেফিনেশন আপডেট করার কোনো সুযোগ নেই, তাই ব্যবহার করার আগে প্রতিবার লেটেস্ট ভার্সন ডাউনলোড করে নেওয়া উচিত।

কম্পিউটার ভাইরাস মুক্ত রাখার উপায়
Dr.web cureit!

এরপর স্টার্ট স্ক্যানিং বাটনে ক্লিক করলে স্ক্যান শুরু হয়ে যাবে।

কম্পিউটার ভাইরাস মুক্ত রাখার উপায়
Dr.Web cureit!

আপনি যদি আপনার সম্পূর্ণ কম্পিউটার বা কোনো নির্দিষ্ট ড্রাইভ স্ক্যান করতে চান তাহলে select objects for scanning বাটনে ক্লিক করুন।

কম্পিউটার ভাইরাস মুক্ত রাখার উপায়
Dr.web cureit!

এরপর আপনি ফোল্ডার/ড্রাইভ সিলেক্ট কোনো দিতে পারবেন।

কম্পিউটার ভাইরাস মুক্ত রাখার উপায়
Dr. web cureit!

৩. প্রথমে যে দুইটা টুল এর কথা বললাম এদের কোনোটাই আপডেট করা যায় না, তাই ব্যবহার করার আগে লেটেস্ট ভার্সন ডাউনলোড করে নিতে হয়।  তবে emsisoft emergency kit  আপডেট করা যায়।  তাই আপনি ইনস্টল করে রেখে দিতে পারেন, মাঝে মাঝে আপডেট করে আপনার কম্পিউটার স্ক্যান করে দেখতে পারেন।  এটা একটা অসাধারণ “second  opinion scanner “. Emsisoft তাদের প্রোডাক্টে bitdefender এন্টিভাইরাস ইঞ্জিন ব্যবহার করে। টুলটি ডাউনলোড করে ইনস্টল করে ফেলুন।

কম্পিউটার ভাইরাস মুক্ত রাখার উপায়
emsisoft emergency kit

এরপর যে ফোল্ডার এ ইনস্টল করেছেন সেখানে গিয়ে “start emergency kit scanner ” ফাইলটিতে ডাবলক্লিক করে স্ক্যানারটি রান করুন।

শুরুতেই ভাইরাস ডেফিনিশন আপডেট করে নিন।

কম্পিউটার ভাইরাস মুক্ত রাখার উপায়
emsisoft emergency kit

নির্দিষ্ট কোনো ফোল্ডার স্ক্যান করতে চাইলে “custom scan ” এ ক্লিক করে ব্রাউস করে ফোল্ডারটি সিলেক্ট করুন।

কম্পিউটার ভাইরাস মুক্ত রাখার উপায়
emsisoft emergency kit

এটা শুধুমাত্র একটা on-demand স্ক্যানার, তাই যেকোন এন্টিভাইরাস এর পাশাপাশি আপনি এটা ব্যবহার করতে পারেন।

৪. এধরণের আরো কয়েকটি টুল হলো :

৫. আর ভাইরাস এর কারণে আপনার কম্পিউটার যদি একদম  ব্যবহার অযোগ্য হয়ে পড়ে (প্রচন্ড স্লো /আপনি বুট করতে পারছেন না ) তবে যেকোনো antivirus live cd / usb দিয়ে শেষ চেষ্টা করে দেখতে পারেন।  Dr web livedisk এরকম একটি টুল। এটার দুইটা ভার্সন আছে, একটা livecd আর অন্যটা liveusb তৈরী করার জন্য।অন্য কোনো কম্পিউটার এ  liveusb ভার্সন ডাউনলোড করে ফেলুন।

কম্পিউটার ভাইরাস মুক্ত রাখার উপায়

এবার একটা খালি পেনড্রাইভে insert করুন। টুলটি ডাবলক্লিক করে স্টার্ট করুন এবং ইন্সট্রাকশন অনুযায়ী আপনার পেনড্রাইভে এ ইনস্টল করুন। এবার পেনড্রাইভে টি থেকে আপনার ভাইরাস আক্রান্ত কম্পিউটারটি বুট করে স্ক্যান করতে হবে।  কম্পিউটার চালু হওয়ার সময় boot menu থেকে usb/pendrive সিলেক্ট করে বুট করতে হবে। boot menu সিলেক্ট করার পদ্ধতি এক এক motherboard এর জন্য এক এক রকম , নেট থেকে আপনারটা জেনে নিতে পারেন।

 

Leave a Reply

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.