বজ্রপাত থেকে সাবধানতা

প্রত্যেক বছরে আমাদের দেশে অনেক মৃত্যু ঘটে বজ্রপাতের কারণে। এই মৃত্যুগুলো বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই এড়ানো সম্ভব যদি কিছু সাবধানতা অবলম্বন করা হয়।
প্রথমেই আমরা একটু বোঝার চেষ্টা করি বজ্রপাত কি বা বজ্রপাত কিভাবে হয়ে থাকে। National Geographic এর এই ভিডিওটিতে বেশ সুন্দরভাবে বজ্রপাতের কারণ ব্যাখ্যা করা হয়েছে।

বজ্রপাতের সময় লক্ষাধিক ভোল্টে ইলেকক্ট্রোস্ট্যাটিক ডিসচার্জ হয়ে থাকে আর এই ডিসচার্জটি হয়ে থাকে যে পথে বাধা বা রেসিস্টেন্স সবথেকে কম সেই পথে। একারণে খোলা জায়গায় বজ্রপাতের সময় থাকাটা নিরাপদ নয় কারণ বাতাসের থেকে মানবদেহের রেসিস্টেন্স অনেক কম।

চলেন এবার জেনে নেই বজ্রপাত থেকে বাঁচার জন্য কি কি সাবধানতা অবলম্বন করা উচিত :

  • সবার আগে আমাদেরকে weather forecast বা আবহাওয়ার পূর্বাভাস দেখার অভ্যাস করতে হবে। আপনার যদি কোন খোলা জায়গায় (যেমন কক্সবাজার সৈকত অথবা টাঙ্গুয়ার হাওড়) যাওয়ার পরিকল্পনা থাকে তাহলে একটু আবহাওয়ার পূর্বাভাসটা দেখে নিয়েন। BBC এর ওয়েবসাইট / accuweather app ব্যবহার করাটা অভ্যাস এ পরিণত করুন। যদি কোন thunderstorm এর সম্ভাবনা থাকে তাহলে আগেই সাবধান হয়ে যান। https://play.google.com/store/apps/details?id=com.accuweather.android
  • আর যদি খোলা মাঠে আপনার আশ্রয় নেওয়ার কোনো জায়গা না থাকে আর বজ্রপাত শুরু হয়ে যায় তাহলে নিরাপদ হল বসে পড়া। এক্ষেত্রে দুইপা খুব কাছাকাছি রাখতে হবে।
  • বজ্রপাতের আওয়াজ পেলেই চেষ্টা করুন কোন ভবনে আশ্রয় নিতে। আর যদি আশেপাশে কিছু না থাকে তাহলে গাড়ির ভিতরও আশ্রয় নিতে পারেন।
  • কোন গাছ অথবা মেটাল স্ট্রাকচার এর নিচে আশ্রয় নিবেন না। এদের ওপর বজ্রপাতের সম্ভাবনা অনেক বেশী আর বজ্রপাত হলে তড়িৎ ভূমিতে ডিসচার্জ হওয়ার সময় আশেপাশে কেউ থাকলে সে ভয়াবহ শক খেতে পারে।

কেন সবসময় সিটবেল্ট পরতে হবে

গাড়ির সিটবেল্টকে আমরা কখনোই খুব বেশি গুরুত্ব দেয় না, ভাবটা অনেকটা এরকম পরলেও  চলে, না পরলেও  চলে।  দুঃখজনক  হলো এইধরণের মানসিকতার জন্য […]

Leave a Reply

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.